১২:৫২ এএম, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার | | ১৫ রবিউস সানি ১৪৪১

Developer | ডেস্ক

নিত্য পন্যের বাজারে চলছে লাফালাফি!

৩০ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:৫৮


গত কয়েক সপ্তাহ ধরে নিত্যপণ্যের বাজারের অস্থিরতা কিছুতেই কাটছে না।  চাল-তেল-পেঁয়াজসহ শাক সবজির দাম আকাশ ছোঁয়া।  এতে, চরম ক্ষুব্ধ সাধারণ মানুষ। 

বেশ কয়েকদিন ধরে ব্যাপক চড়া চালের বাজার।  প্রকারভেদে চালের দাম কেজিতে বেড়ে যায় ৩ থেকে ৬ টাকা পর্যন্ত।  তবে, কোথাও কোথাও এখন ২-৩ টাকা কমেছে বলে দাবি ব্যবসায়ীদের।  আর বরাবরের মতো পাইকার-মিল মালিক একে অপরকে দুষছে। 

পেঁয়াজের বাজারেও কোনো সুখবর নেই।  বিশেষ করে রাজধানীতে এই পণ্য এখনও অনেকের নাগালের বাইরে।  আমদানি হলেও কারসাজি থেমে নেই।  তাই, দেশি পেঁয়াজ প্রায় আড়াইশ টাকা।  কোথাও কোথাও পেঁয়াজের কলি ও পাতাই কেজি ১০০ টাকা। 

এদিকে ভরা মৌসুম হলেও শাক-সবজির দামও বেশ চড়া।  কোনো সবজিই পঞ্চাশ টাকার নিচে নেই বলা যায়। 

চিনি, সয়াবিন তেল আর পোলাও চালের দাম দুই সপ্তাহ আগে বেড়েছিলো।  এখনও সেই বাড়তি দামেই বিকোচ্ছে পণ্যগুলো।  মসলা জাতীয় পণ্যও বিক্রি হচ্ছে আগের দামে। 

ব্যবসায়ীরা বলছেন, সরবরাহ স্বাভাবিক থাকলে সামনের দিনে পেঁয়াজসহ সব ধরনের কাঁচাপণ্যের দাম আরও কমবে। 

শুক্রবার (২৯ নভেম্বর) রাজধানীর রামপুরা, মালিবাগ, মালিবাগ রেলগেট বাজার, কারওয়ান বাজার, কাঠালবাগান বাজার ঘুরে এসব চিত্র দেখা গেছে। 

গত সপ্তাহে ব্যবসায়ীরা পরিবহন ধর্মঘটের কারণে সবজি না আসার অযুহাতে দাম বাড়িয়ে দেন।  এরপর থেকে বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে সব ধরনের সবজি।  এসব বাজারে বর্তমানে প্রতিকেজি শিম (কালো) বিক্রি হচ্ছে ৯০ থেকে ১০০ টাকা, শিম (সাদা) ৮০ টাকা, গাজর (ফ্রেশ) ৯০ থেকে ১০০ টাকা, গাজর রেগুলার ৭০ টাকা, পটল ৫০ থেকে ৬০ টাকা, ঝিঙা-ধুন্দল ৭০ থেকে ৮০ টাকা, করলা ৭০ থেকে ৮০ টাকা, উস্তা ৮০ থেকে ১০০ টাকা, কাঁকরোল ৭০ থেকে ৮০ টাকা, বেগুন আকারভেদে ৫০ থেকে ৯০ টাকা, ঢেঁড়স ৫০ থেকে ৬০ টাকা, পেঁপে ২৫ থেকে ৪০ টাকা, শসা (প্রকারভেদে) ১০০ থেকে ১২০ টাকা, শসা (ক্ষীরা) ৭০ টাকা, কচুর ছড়া ৫০ থেকে ৬০ টাকা, কচুর লতি ৬০ থেকে ৮০ টাকা, কাঁচামরিচ প্রতিকেজি ৮০ থেকে ১০০ টাকাতে বিক্রি হচ্ছে। 

এছাড়া আকারভেদে প্রতি পিস বাঁধাকপি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা, ফুলকপি ৪০ থেকে ৬০ টাকা, লাউ ৬০ থেকে ৮০ টাকা, জালিকুমড়া ৪০ থেকে ৫০ টাকায়। 

বাজারে নতুন আলু এলেও সব ধরনের আলু চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে।  পুরাতন আলু ১০ টাকা বেড়ে বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ৩৫ থেকে ৪০ টাকা, নতুন আলু (আকারভেদে) ৮০ থেকে ১০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হতে দেখা গেছে এসব বাজারে। 

বাজারে পর্যাপ্ত সবজি থাকলেও দাম না কম নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে জনমনে।  এ বিষয়ে কাঠালবাগান বাজারের ক্রেতা নাছিমা আক্তার বলেন, গত সপ্তাহে দেখলাম পরিবহন ধর্মঘটের কারণে সব সবজির দাম বাড়তি।  আজও দেখি সেই বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে সবধরনের সবজি, আবার বাজারেও কোনো কিছুর ঘাটতি নেই।  এ বাজারের অপর ক্রেতা হাসান বলেন, বর্তমানে কোনো কিছুর দাম একবার বেড়ে গেলে তা আর সহজে কমে না।  দেশে এখন ব্যবসায়ীরাই সবচেয়ে শক্তিশালী, তারা সবকিছুর মূল্য ঠিক করে দেন।  শুধু সবজি কেন পেঁয়াজ, চালের বাজারের পরিস্থিতিও একই। 

কাঠাল বাগান বাজারের সবজি বিক্রেতা সিরাজ মিয়া বলেন, পাইকারি বাজারে সবজির দাম বেশি থাকায় খুচরা বাজারে বাড়তি।  পাইকারি বাজারে দাম কমলে খুচরাতেও কমে।  তবে ‍শীতে সব সবজি বাজারে এলে দাম কমে আসবে। 

এদিকে, এসব বাজারে প্রতিকেজি (এক কেজি সাইজ) ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৯০০ থেকে ৯৫০ টাকায়, ৮০০ থেকে ৯০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৭৫০ থেকে ৮৫০ টাকা কেজি দরে।  এছাড়া কাচকি বিক্রি হচ্ছে ২৮০ থেকে ৩০০ টাকা, মলা ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকা, ছোট পুঁটি (তাজা) ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকা, শিং ৩৫০ থেকে ৬০০ টাকা, পাবদা ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকা, চিংড়ি (গলদা) ৪৫০ থেকে ৫৫০ টাকা, বাগদা ৫০০ থেকে ৭৫০ টাকা, দেশি চিংড়ি ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকা, রুই (আকারভেদে) ২৫০ থেকে ৩৫০ টাকা, মৃগেল ২০০ থেকে ৩০০ টাকা, পাঙাস ১৩০ থেকে ১৭০ টাকা, তেলাপিয়া ১৩০ থেকে ১৬০ টাকা, কই মাছ ১৮০ থেকে ২০০ টাকা, কাতল ২৮০ থেকে ৩০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হতে দেখা গেছে। 

এ বাজারে ডিম, মুরগি ও মাংসের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।  এসব বাজারে প্রতিকেজি বয়লার ১২৫ থেকে ১৩০ টাকা, লেয়ার ১৮০ থেকে ২০০ টাকা, সাদা লেয়ার ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।  লাল ডিম প্রতি ডজন ১০০ টাকা, সাদা ৯৫ টাকা, হাঁসের ডিম ১৪৫ টাকা, দেশি মুরগির ডিম ১৪০ থেকে ১৪৫ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে। 

এছাড়া বাজারে প্রতিকেজি গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৫৫০ টাকা, খাসি ৭৮০ টাকা, ছাগলের মাংস ৭২০ টাকা কেজি দরে।