১১:৪৩ এএম, ৮ এপ্রিল ২০২০, বুধবার | | ১৪ শা'বান ১৪৪১

Developer | ডেস্ক

যেসব খাবার যৌন ক্ষমতা বাড়ায়

০৬ মার্চ ২০২০, ০৭:০০


স্বাস্থ্যকর এবং সুখী যৌন জীবন প্রত্যেকেই চায়।  তারপরও কারও কারও দাম্পত্য জীবনে যৌন সমস্যা রয়ে য়ায়।  অনেকের ক্ষেত্রেই এর পরিণতি ঘটে বিচ্ছেদে।  যৌন অক্ষমতা যেমন- কম বীর্যপাত, অকাল বীর্যপাত এবং দম্পতিদের মধ্যে সেক্স ড্রাইভের অভাব ইত্যাদি সমস্যাগুলো বর্তমানে খুব গভীর হয়ে দাঁড়িয়েছে।  এই সমস্যাকে কাটিয়ে উঠতে অনেকেই নানান রকম ওষুধ সেবন করে থাকেন।  তবে এসব ওষুধ চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া সেবন করা সম্ভব না। 

শারীরিক যৌন অক্ষমতাকে দূর করতে বরং এমন কিছু প্রাকৃতিক খাবার খান যা আপনার যৌন ক্ষমতা বা ইচ্ছাকে বৃদ্ধি করতে সাহায্য করবে।  এসব খাবার শরীরে বিভিন্ন পুষ্টি পূরণের পাশাপাশি যৌন অক্ষমতাকে সক্ষম করে তুলতে খুবই উপকারী। 

চলুন এবার জেনে নিন সেসব খাবারের তালিকা...

দুধ

যৌন ক্ষমতাকে ধরে রাখতে দুধের গুরুত্ব অপরিসীম।  এতে থাকা প্রাণিজ-ফ্যাট যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধিতে অত্যন্ত সহায়ক।  শরীরে সেক্স হরমোনের পরিমাণ বাড়াতে চাইলে বেশি পরিমাণে ফ্যাট জাতীয় খাবার খাওয়ার প্রয়োজন রয়েছে।  যেমন-খাঁটি দুধ, দুধের সর, মাখন ইত্যাদি।  তবে এই ফ্যাট জাতীয় খাবারগুলো যেন হয় প্রাকৃতিক ও স্যাচুরেটেড যুক্ত ফ্যাট।  বিশেষ করে ছাগলের দুধ পুরুষের যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। 

এলাচ

এলাচকে বলা হয় রোমান্টিক মশলা।  কারণ এতে অ্যাফ্রোডিসিয়াক বৈশিষ্ট্য থাকায় এটি যৌন ইচ্ছা বাড়াতে সাহায্য করে।  এলাচের তেলের ম্যাসাজ রোমান্টিকতা বাড়িয়ে তোলে।  এ ছাড়াও চা এবং কফি হিসেবে এলাচ খাওয়া পুরুষত্বহীনতা দূর করতে উপকারী। 

ব্রকোলি

অনেকেই খেতে পছন্দ না করলেও সবজির মধ্যে অত্যন্ত প্রয়োজনীয় ও উপকারী সবজি হলো ব্রকোলি।  এতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-সি থাকে, যা জননাঙ্গে রক্ত প্রবাহকে স্বাভাবিক রাখে।  কারণ ভিটামিন সি শরীরে বয়ে চলা রক্তস্রোতের ধারাকে বজায় রাখে।  যৌন মুহূর্তে অঙ্গে রক্তস্রোতের অবাধ প্রবাহকে বহাল রাখতে ব্রকোলি খুবই কার্যকর ভূমিকা পালন করে। 

কলা

কলায় থাকে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, বি, সি ও পটাশিয়াম, যা মানবদেহের যৌনক্ষমতাকে বৃদ্ধি করে।  এতে থাকা ব্রোমেলাইন নামক এনজাইম মেল সেক্স হরমোন টেস্টোস্টেরনের পরিমাণ বৃদ্ধি করে এবং পুরুষদের মধ্যে কামশক্তি বাড়ায়।  পটাশিয়াম ও ভিটামিন শরীরে রক্ত সঞ্চালনার মাত্রাকে বৃদ্ধি করে এবং দেহের শক্তির স্তরকে বাড়িয়ে তোলে। 

ডিম

যৌন স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী খাবার হলো ডিম।  এতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে যা হরমোনের মাত্রাকে ঠিক রাখতে এবং মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে।  রোজ সকালে একটা করে ডিম খেলে শরীরিক শক্তি ও যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। 

মধু

মধু হলো হাজারো ফুল ও দানার নির্যাস, যা যৌন ইচ্ছাকে বৃদ্ধি করতে এবং যৌবনকে ধরে রাখতে খুবই উপকারী ও শ্রেষ্ঠ উপাদান।  তাই সপ্তাহে তিন থেকে চার দিন সকালে ১ চামচ করে মধু খান। 

রসুন

বহুকাল থেকেই যৌন সমস্যা মেটাতে রসুন ব্যবহার হয়ে আসছে।  সুতরাং আপনারও যদি যৌন সমস্যা থেকে থাকে তবে রোজ ১ কোয়া করে রসুন খাওয়া শুরু করুন।  রসুন নারী ও পুরুষ উভয়েরই যৌন উদ্দীপনাকে বাড়াতে এবং জননাঙ্গকে সক্রিয় রাখতে সাহায্য করে।  এ ছাড়াও রসুনে থাকা অ্যালিসিন যা যৌন অঙ্গগুলোতে রক্ত প্রবাহের মাত্রাকে স্বাভাবিক রাখে। 

ঝিনুক

যৌন ক্ষমতাকে ধরে রাখতে এবং যৌনজীবন আনন্দময় করে তুলতে ঝিনুক খুবই উপকারী খাদ্য।  এতে থাকে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম ও জিঙ্ক যা শুক্রাণুর সংখ্যাকে বৃদ্ধি করে এবং যৌন-ইচ্ছাকে বাড়িয়ে তোলে।  একটি সমীক্ষায় জানা গেছে, রোমানরা প্রতিদিন সকালে ৫০টি করে কাঁচা ঝিনুক খায়। 

ডার্ক চকোলেট

ডার্ক চকোলেট একটি সুপরিচিত অ্যাফ্রোডিসিয়াক যা যৌন উদ্দীপনাকে বাড়িয়ে তোলে।  এতে থাকা ফেনিলেথ্যালামাইন উপাদান এই উদ্দীপনাকে বাড়াতে সাহায্য করে।  এতে থাকে প্রচুর পরিমাণে ক্যালরি যা যৌন ক্ষমতাকে বৃদ্ধি করে।  তাই রোজ ১ থেকে ২ টুকরো ডার্ক চকোলেট খাওয়া অভ্যাস করুন। 

বিট ও গাজর

প্রাকৃতিক উপায়ে জননাঙ্গের স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে প্রতিদিন বিট ও গাজর খান।  বিটে থাকে প্রচুর পরিমাণে নাইট্রেট যা পুরুষাঙ্গের রক্তনালীগুলো প্রসারিত করে।  আর গাজরে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ থাকার ফলে এটি শুক্রাণুর পরিমাণ বৃদ্ধি করে এবং প্রোজেস্টেরন হরমোনের মাত্রাকে বজায় রাখতে সাহায্য করে। 

বাদাম ও বীজ জাতীয় খাবার

সেক্স হরমোনগুলো ঠিকমতো কাজ করার জন্য কোলেস্টেরলের মাত্রা ঠিক থাকা অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।  বাদাম বা বীজ জাতীয় খাবারে প্রচুর পরিমাণে প্রয়োজনীয় মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট থাকে যা শরীরে কোলেস্টেরল তৈরিতে সাহায্য করে।  বীজ জাতীয় খাবার যেমন- কুমড়োর দানায় থাকে প্রচুর পরিমাণে জিঙ্ক যা সেবনে প্রস্টেট গ্ল্যান্ড সুস্থ থাকে।  পাশাপাশি শুক্রাণু তৈরি করে এবং টেসটোস্টেরন হরমোন তৈরিতে সাহায্য করে।  তাই যৌন জীবন সুস্থ রাখতে রোজ কুমড়োর বীজ, সূর্যমূখীর বীজ, চিনা বাদাম, কাজু বাদাম, পেস্তা বাদাম ইত্যাদি খাওয়ার অভ্যাস করুন।